র‌্যাংকিং

র‌্যাংকিং – প্রথম ভাগ


গুগল কিভাবে কন্টেন্ট/পেইজ/ওয়েবসাইট এর র‌্যাংক (বাংলা অভিধান থেকে দেখে নিবেন) করে?

মূলতঃ দুইটি বিষয়ের উপর ভিত্তি করে গুগল কন্টেন্ট/পেইজ/ওয়েবসাইট এর র‌্যাংকিং তৈরি করে থাকে:

১: কন্টেন্ট, কীওয়ার্ড এবং আরো কিছু অনুঘটক (ফ্যাক্টর) এর সঙ্গে পেইজ/ওয়েবসাইটটি কতোটা প্রাসঙ্গিক (রিলিভ্যান্ট)।

২: অন্যান্য ওয়েবসাইট এর তুলনায় ব্যাকলিংকগুলো কতোটা শক্তিশালী (অথরিটি সম্পন্ন) এবং তাদের সংখ্যা বা পরিমাণ এর ব্যবধান কতো।

উপরোক্ত বিষয়গুলোকে সহজে বুঝানোর উপায় হলো ওয়েবসাইট বা পেইজ এর মধ্যে ভালো কন্টেন্ট দেয়া। আর এই লড়াই এর বিজয়ী হওয়ার সহজ শর্ত হলো সর্বোত্তম কন্টেন্ট দিয়ে অন্যদেরকে পরাজিত করা। স্মরণ রাখতে হবে, কন্টেন্ট এখন আর শুধু কিং বা রাজা নয়, কন্টেন্ট হলো কিংডম অর্থাৎ সাম্রাজ্য। যদি আপনি রাজ্যের উত্তরাধিকারী হতে পারেন, তাহলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে রাজা হয়ে যাবেন!

মানসম্মত কন্টেন্ট (কোয়ালিটি কন্টেন্ট) ইউজার এর আগ্রহ বা চাহিদার ম্যাসেজ বা বার্তা বহন করে এবং গুগল এর একমাত্র উদ্দেশ্য হলো সার্চ রেজাল্ট এর মাধ্যমে মানসম্মত এবং প্রাসঙ্গিক কন্টেন্ট প্রদর্শন করা।

নিচে উল্লেখিত পদ্ধতি বা কৌশল অবলম্বনের মাধ্যমে আপনিও সফল হতে পারেন:

১। একজন ইউজার বা ব্যবহারকারী কি চাচ্ছে, যেমন- কোন পণ্য, সেবা নাকি অর্থবহ তথ্য-উপাত্ত, সেটি খোঁজে বের করুন এবং সে অনুযায়ী মানসম্মত ফলাফল (ফিডব্যাক বা কন্টেন্ট) উপস্থাপন করুন।

২। আপনার ওয়েবসাইট এর কন্টেন্ট বা সেবার ধরণ অনুযায়ী ”কমন সার্চ টার্মগুলো (কীওয়ার্ড)” খোঁজে বের করার চেষ্টা করুন।

৩। ঐসব সার্চ টার্মগুলোর (কীওয়ার্ডগুলোর) জন্য আপনার প্রতিদ্বন্দ্বী কে বা কারা সেটিও খোঁজে বের করার চেষ্টা করুন।

৪। ঐসব সার্চ টার্মগুলোর (কীওয়ার্ডগুলোর) সমন্বয়ের মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইট/ পেইজ তৈরি করুন অথবা ইতোমধ্যে তৈরি করা থাকলে, সেগুলো অপটিমাইজ করুন।

৫। নিশ্চিত করুন, আপনার কন্টেন্টগুলো ঐসব সার্চ টার্মগুলো (কীওয়ার্ডগুলো) সহজে দৃশ্যমান বা খোঁজে বের করার মতো।

৬। সার্চ রেজাল্ট পেইজ এর প্রথম সারিতে থাকার জন্য আপনি কতো বেশি পেইজ তৈরি করেছেন বা কন্টেন্ট যুক্ত করেছেন, সেটি মোটেও গুরুত্বপূর্ণ নয়, গুরুত্বপূর্ণ হলো, আপনি সঠিকভাবে স্ট্রাকচার বা কাঠামো তৈরি করতে পেরেছেন কি না। সঠিকভাবে ঐসব সার্চ টার্মগুলোর (কীওয়ার্ডগুলোর) স্ট্যাকচার এবং বিন্যাস বা কাঠামো তৈরি করতে পারলে, শুধুমাত্র একটি পেইজ এর কন্টেন্ট দিয়ে-ই সার্চ রেজাল্টের প্রথম সারিতে আসা সম্ভব।

৭। এসইও হলো চলমান প্রক্রিয়াম ধীর গতিতে হলেও চলমান থাকতে হবে। যখন-ই আপনি থেমে যাবেন, তখন-ই হারিয়ে যাবেন! তাই এসইও এর জন্য ”কচ্ছপ এবং খরগোশ” এর দৌড় প্রতিযোগিতার গল্পটি স্মরণ রাখতে হবে- সব সময়!

ধরে নিচ্ছি আপনি ইতোমধ্যে আপনার ওয়েবসাইটটি তৈরি করে নিয়েছেন। আপনাকে সার্চ এর প্রথম সারিতে দেখানোর জন্য সার্চ ইঞ্জিনগুলোর নিকট এটিই গুরুত্বপূর্ণ। যদিও অন্যান্য আরো অনুঘটক রয়েছে, এবং এদের ভূমিকাও কম গুরুত্বপূর্ণ নয়।

দ্বিতীয় ভাগ পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন

মন্তব্য করুন:

Scroll Up